Home লাইফস্টাইল জেনে নিন: হাত ধোয়ার সঠিক নিয়ম কি

জেনে নিন: হাত ধোয়ার সঠিক নিয়ম কি

by life policy
হাত ধোয়ার সঠিক নিয়ম

লাইফস্টাইল ডেস্ক:: এইতো করোনা পরিস্থিতিতে গত দেড় বছর ধরেই মানুষের কাছে চির অভ্যস্ত হয়ে উঠলো হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও অ্যালকোহল প্যাডের ব্যবহার। তাছাড়া মহিলাদের ব্যাগে বর্তমানে পার্স, পানির বোতল, চাবির পাশে স্থান দখল করে নিল সুরক্ষিত থাকার জন্য ১টি করে হ্যান্ড স্যানিটাইজারের বোতল।

কেন পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকবেন: হাত ধোয়ার সঠিক নিয়ম

শুধু তাই নয়, ব্যাগে মধ্যে না থাকলেও ব্যাগের পাশেই অর্থাৎ, সাথেই আবার অনেকেই চাবির রিংয়ের মতো ঝুলিয়ে রেখেছেন এই হ্যান্ড স্যানিটাইজারকে। পুরুষরাও সাথে রাখেন নানান রকমের এই হ্যান্ড স্যানিটাইজার। তবে যা না বললেই নয়, বর্তমানে সবারই ফ্যাশনের জিনিসের অংশ হিসেবে এই হ্যান্ড স্যানিটাইজার জায়গা করে নিয়েছে।

প্রাত্যাহিক নানা কাজের অংশ হিসেবে মানুষকে ছুটতে হয় নানা জায়গায়, কেউ আবার অফিসে, রেস্টুরেন্টে খেতে গিয়ে কিংবা জরুরি কোনো মিটিংয়ের মধ্যস্থলে হ্যান্ড স্যানিটাইজ করতে করতে প্রচলিত যে হাত ধোয়ার কথা তা বেমালুম ভুলেই গিয়েছেন অনেকেই।

এদিকে ভাত খেয়ে সেরে উঠলে হাতটা পরিষ্কার করা নিয়ে পড়তে হয় ঝামেলায়। কেননা, এটি পূর্বে এতোটা ঝামেলার লাগত না তবে এখন যেনো লাগে। কারণ, এই যে আমাদের অনেকেরই হ্যান্ড স্যানিটাইজ করতে গিয়ে হাত ধোয়ার কাজটা রিতিমত কমে গিয়েছে। তবে যা কিছুই করতে যাই কিংবা খাবার গ্রহণের পূর্বে বা পরে সর্বত্রই জরুরি কিন্তু হাত ধোয়া। এছাড়া বিশেষ কিছু কার্যাবলিতে তো হাত ধোয়ার কোনো বিকল্প নেই।

কেন হাত ধুবেন ও পরিস্কার থাকবেন?

পুনরায় বেড়েছে করোনার প্রকট। তাই যে কোনো অবস্থান বা সময়ের প্রেক্ষাপটের চেয়ে বর্তমানে করোনাভাইরাস সর্বোচ্চ ভয়াবহ রূপে ফিরে এসেছে। প্রতিদিনই মৃত্যুর মুখে পতিত হচ্ছে শত-শত মানুষেরা। আর আমাদের পরিপূর্ণ বিধিতে এই হাত ধোয়ার অভ্যাস, রক্ষা করতে পারে এই ভাইরাস থেকে। তাছাড়া অনেকেরই তো আর ‘হ্যান্ড স্যানিটাইজার’ ব্যবহারের অত অর্থকড়ি নেই। তাই মেনে চলা জরুরি কঠোর সব স্বাস্থ্যবিধি। বিশেষত প্রতিবেলা ধুয়ে হবে দুই হাত। সামাজিক যোগাযোগের সকল মাধ্যম তথা- ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম, টুইটার আর ইউটিউবেও বড় বড় তারকারা নিয়মিত হাত ধোয়ার সঠিক পদ্ধতি দেখাচ্ছেন তাদের ভক্তের। হাত ধুতে সাবান ও পরিষ্কার বিশুদ্ধ পানি মাধ্যমে ৩০-৪৮ ভাগ পর্যন্ত বিভিন্ন সংক্রামক রোগ হ্রাসে বেশ কাজে দেয়।

কঠোর বিধির আইনের কারণে চলমান লকডাউনেওও আমাদের অনেকেরই নানান জরুরি যে কোনো কাজে বাইরে বেড়িয়ে পড়তে। সেই মুহূর্তেও বাইরে থেকে বাসায় এসে ভালোকরে সাবান কিংবা হ্যান্ডওয়াশ দিয়ে আমাড়ের দদুটো হাত ধুয়ে নিতে হয়। তবে প্রশ্নটি হচ্ছে, হাত দুটো সাবান কিংবা হ্যান্ডওয়াশের সাথে পানি দিয়েই ধুয়ে নিতে হবে?

আমাদের দেশের মতো দেশগুলোতে হাত ধুয়ে নিতে বালু, মাটি বা ছাইয়ের ব্যবহারের অভ্যাস রয়েছে বেশ পুরনো কাল থেকেই। তবে কি এই প্রক্রিয়ায় হাতে লেগে থাকা অদৃশ্য সকল জীবাণু নির্মূল হয়? এর জবাবটি হচ্ছে, ক্ষারযুক্ত কোনো দ্রব্য ছাড়াই হাত পরিষ্কারের কাজ সারলে দুই হাত হয়তো পরিচ্ছন্ন ঠিকি দেখাবে তবে হাতে লেগে থাকা জীবাণুসমূহ কখনই নির্মূল হয়ে থাকে না।

এর ফলে হাতের মধ্যে থাকা হাতের তালু, নখ আর আঙুলের রেখাগুলোতে খালি চোখে দেখা যায় না এমন অসংখ্য জীবাণুর উপস্থিতি থেকে যাবে। এর মূল কারণটি হচ্ছে, অদৃশ্য ভাইরাসগুলোর উপরিস্থর চর্বির আবরণে আবদ্ধ থাকে। আর সেই চর্বিগুলো যখন কোনো ক্ষার উপাদানের স্পর্শে আসে ঠিক সেই সময় চর্বিগুলো খন্ডিত হয়ো টুকরা-টুকরা হয়ে উঠে। তবে ব্যবহৃত সাবানের মধ্যে ক্ষারেরর পরিমাণ যত বেশি থাকবে, ভাইরাসও তত দ্রুত সরে যায়। আর এজন্য আমাদের কাপড় ধোয়ার সাবানটি হাত ধোয়ার জন্য বেশি ব্যবহার করা দরকার।

হাত ধোয়ার সঠিক নিয়ম কি

কেবলমাত্র সঠিকরূপে হাতকে পরিচ্ছন্ন করে নিতে প্রয়োজন ৫ ধাপের অনুসরণ। আমাদের প্রথমত, পরিষ্কার পানিতে হাত ভিজিয়ে নিতে হবে। এরপরই হাতের পিঠ, তালু আর আঙুলে পরিমাণমতো সাবান লাগিয়ে নিতে হবে।তারপর অন্তত ২০ সেকেন্ড সময় ধরে হাতে সাবান ভালো করে মেজে নিতে হবে। তবে হাতে কোনো ধরণের আংটি বা কোনো অলংকার থেকে থাকলে তার ওপর ও নিচ সঠিকভাবে করে পরিষ্কার করে নিতে হবে। সাবান দ্বারা ২ হাতই একে অপরের সাথে ভালো করে ঘর্ষণ করে নিতে হবে। আর ৪র্থ ধাপে পরিষ্কার পানি দ্বারা হাত ভালোমতো ধুয়ে জীবাণুমুক্ত করে নিতে হবে।

তবে সবশেষে হাত ধোয়ার কাজ সেরে ফেললে পরিষ্কার, শুকনো কোনো কাপড় কিংবা টিস্যু দ্বারা উত্তমভাবে হাত মুছে ফেলতে হবে।

করোনাভাইরাসের এই সংক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে আমাদের হাত ধোয়ার অভ্যাস একটি গুরুত্বপূর্ণ কার্যত উপায়। তাই আমাদেরকে হাত ধোয়ার কাজটি নিজেকেই সামলে নিতে হবে। নিজ নিজ করার পাশাপাশি হাত ধোয়ার অনুশীলনই আমাদর সুস্থ্য রাখতে পারে বহুগুণে। এর পাশাপাশি পরিবার-পরিজন, আত্মীয়-স্বজন, প্রিয়জন আর বন্ধু-বান্ধবকেও এ পরিস্থিতিতে হাত ধেয়ার কাজে আমাদের সকলকেই উৎসাহিত করে তুলতে হবে নিজেদের সামাজিক সকল দায়িত্ব থেকেই।

আরও পড়ুনঃ টাইফয়েড জ্বরের কারণ: লক্ষণ, চিকিৎসা ও প্রতিকার

You may also like

Leave a Comment