Home লাইফস্টাইল টাইফয়েড জ্বরের কারণ: লক্ষণ, চিকিৎসা ও প্রতিকার

টাইফয়েড জ্বরের কারণ: লক্ষণ, চিকিৎসা ও প্রতিকার

by Shila Sen
টাইফয়েড জ্বরের লক্ষণ

টাইফয়েড জ্বরের লক্ষণ: টাইফয়েড মূলত ব্যাকটেরিয়া জনিত জ্বর। যা কিনা সালমোনেলা টাইফি ও প্যারাটাইফি জীবাণু থেকে হয়ে থাকে। দূষিত খাবার বা পানির মাধ্যমে এই রোগের জীবাণু ছড়িয়েয়ে পড়ে। কেউ  যদি আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে আসে তারও এই রোগ হতে পারে।

টাইফয়েড জ্বরের লক্ষণ | টাইফয়েড জ্বরে আক্রান্ত হলে করণীয় কি

টাইফয়েড জ্বরের প্রকাশকাল: রোগীর সংক্রমণের ১-৩ সপ্তাহ পর।

টাইফয়েড জ্বরের উপসর্গ

  • →জ্বর।
    →৪-৫ দিনে জ্বর বেড়ে যায়।
    →জ্বর কখনো বাড়ে আবার কখনো কমে যায়।
    →জ্বর কোনো সময় সম্পূর্ণ ছেড়ে যায় না।
    →মাথাব্যথা, শরীর ব্যথা ও শারীরিক দুর্বলতা।
    →কোষ্ঠকাঠিন্য হয়।
    →ডায়রিয়া ও বমি হয়।
    →পেটে ও পিঠে গোলাপি রঙের দানা দেখা দিতে পারে।
    →কখনো জ্বরের সঙ্গে কাশিও হয়।

টাইফয়েড জ্বরে যেসব সমস্যা হতে পারে

  • →ক্ষুদ্রান্ত্রে রক্তক্ষরণ। (নাড়ি ফুটো)।
    →মেনিনজাইটিস।
    →অস্থি ও অস্থিসন্ধিতে ইনফেকশন।
    →পিত্তথলির প্রদাহ।
    →কিডনির প্রদাহ।
    →হৃৎপিণ্ডের পেশির প্রদাহ।

টাইফয়েড জ্বরের চিকিৎসা

  • →জ্বর ও ব্যথার জন্য প্যারাসিটামল জাতীয় ট্যাবলেট (৪-৫ বার সেবন)।
    →মূল চিকিৎসা অ্যান্টিবায়োটিক (১০-১৪ দিন)।

টাইফয়েড জ্বরের প্রতিকার

  • →অ্যান্টিবায়োটিক শুরু করা।
    →জ্বর সেরে উঠলেও সম্পূর্ণ কোর্স সমাপ্ত করা।
    →বেশি দিন অ্যান্টিবায়োটিক সেবন করা বা ইনজেকশন দেয়া। (টাইফয়েড জ্বর প্রতিরোধে তিন ধরনের টিকা আছে। যথা- একটি মুখে খাওয়ার এবং বাকি দুটি ইনজেকশন)।
    →দু’বছরের বেশি বয়সী শিশুরা এ টিকা দেওয়া যায়।
    →নিরাপদ ও বিশুদ্ধ পানি পান করা।
    →হাত ভালোভাবে ধুতে হবে।
    →পানি ফুটিয়ে পান করতে হবে।
    →খাবার গরম করে খেতে হবে।
    →পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন ও স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেট ব্যবহার করতে হবে এবং পরিষ্কার পোশাক পরা।

টাইফয়েড জ্বরে আক্রান্ত হলে করণীয় কি

  • →ঠান্ডা খাবার, ফ্রিজের পানি খাওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে।
    →কুসুম গরম পানি পান করা।
    →যে কোনো নরম খাবার খাওয়া। যেমন: সবজি, ডিমসেদ্ধ ইত্যাদি।
    →এককাপ মতো পানিতে রসুনের ১টি কোয়া ফেলে ফুটিয়ে নিয়ে সেই ঈষদুষ্ণ পানি দিনে ২বার খাওয়া।
    →আপেল, কমলালেবু, আঙ্গুর, আনারস ইত্যদি ফল খাওয়া।
    →ভিটামিন সি এবং ভিটামিন এ যুক্ত ফল বেশি বেশি গ্রহণ।

পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতাই টাইফয়েড জ্বর থেকে বাঁচার একমাত্র মূলমন্ত্র, যারা নিয়মিত ভ্রমণ করেন তাদের প্রায়ই বিভিন্ন জায়গায় খাওয়া দাওয়া করতে হয়। এসব এলাকায় বিশুদ্ধ পানি পান এবং স্বাস্থ্যসম্মত খাবার সবসময় নিশ্চিত করা সম্ভব হয় না ফলে টাইফয়েড জ্বরে আক্রান্ত হবার ঝুঁকি থাকে বেশি। তাই টাইফয়েড প্রবণ এলাকা পরিদর্শন করলে বাইরের খাবার খাওয়া এবং পানি পান করার ক্ষেত্রে সাবধানতা অবলম্বন করা উচিত।  সূত্রঃ লিংক

টাইফয়েড জ্বর কি এবং প্রতিকার PDF ডাউনলোড করুন

আরও পড়ুনঃ চোখের যত্ন কিভাবে নিতে হয়: জেনে নিন প্রয়োজনীয় টিপস

You may also like

1 comment

Leave a Reply to কেন পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকবেন: হাত ধোয়ার সঠিক নিয়ম Cancel Reply